আক্রমণাত্মক ব্যাটিং, অলরাউন্ডার ও স্পিনে শক্তিশালী রংপুর; দুর্বলতা মিডল অর্ডারে

বিপিএল এর ২য় আসর থেকে যাত্রা সূচনা রংপুর রাইডার্সের।
নতুন দল হিসেবে শুরুটা ভালো করলেও শেষপর্যন্ত শেষ চারের টিকেট পায়নি। পরের আসর ২০১৫ তে সাকিব, সৌম্য, সামি,  পেরেরাদের নিয়ে অপেক্ষাকৃত শক্তিশালী দল গঠন করে রংপুর। কিন্তু ভাগ্য এবারও সাথে নেই। ২ নম্বরে থেকে গ্রুপ পর্ব শেষ করলেও প্লে-অফ এর ২টি ম্যাচেই হেরে টুর্নামেন্ট শেষ রংপুরের।

এবার ২০১৬ তে স্পিনার আর অলরাউন্ডারদের নিয়ে মোটামুটি শক্তিশালী দল গড়েছে রংপুর। দলটির মূল হাতিয়ার আক্রমনাত্মক ব্যাটসম্যান আর স্পিনার। সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ শেহজাদ, শারজিল খান, গিড্রন পোপে, পিনাক ঘোষ, নাসির জামশেদ, মোহাম্মদ মিঠুন দের নিয়ে শক্তিশালী টপঅর্ডার রংপুরের।

এরা সবাই আক্রমণাত্মক ব্যাটসম্যান। যেকোন একজন ক্রিজে দাঁড়ালেই বিপক্ষ দলের বোলারদের নাস্তানাবুদ করে ছাড়বেন। মিডল অর্ডারে কিছুটা দুর্বল রংপুর। মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান বাবর আজম না আসায় আরো দুর্বল হয়ে পড়েছে রংপুরের মিডল অর্ডার। অধিনায়ক নাঈম ইসলামই এখন মূল ভরসা।

তবে দাসুন শানাকা, লিয়াম ডওসন, মেহরাব হোসাইন, জুপিটার ঘোষ মিডল অর্ডারকে শক্তিশালী করার পাশাপাশি মিডিয়াম ফাস্ট বোলিংয়েও ভূমিকা রাখতে পারেন। এরা সবাই পেস বোলিং অলরাউন্ডার।গিহান রুপসিংহাও লেগব্রেক বোলিংয়ের পাশাপাশি মিডল অর্ডারে অবদান রাখতে পারেন। সুযোগ পেলে নিজেকে প্রমাণ করতে পারে যে কেউ। আফ্রিদি, জিয়াউর ও মুক্তার শেষেরদিকে ঝড় তুললে রানের পাহাড় গড়তে পারে রংপুর।
রংপুরের বোলিং লাইন আপটাও সমীহ করার মত। রুবেল হোসেন আর রিচার্ড গ্লিসন পেস বোলিংয়ে গতির ঝড় তুলবেন। পাশাপাশি জিয়াউর,মুক্তার সহ লিয়াম ডওসন,দাসুন শানাকা,মেহরাব,জুপিটারদের নিয়ে মিডিয়াম ফাস্ট বলেও শক্তিশালী রংপুর।

রংপুরের সবচেয়ে শক্তির জায়গা স্পিন। আফ্রিদি,সেনানায়েকা,আরাফাত সানি,সোহাগ গাজীর মত ওয়ার্ল্ড ক্লাস বোলার আছে রংপুরে। তাছাড়া ইলিয়াস সানি,পোপে,নাঈম ইসলাম,রুপসিংহা,শাহবাজ চৌহানও ভালো মানের স্পিনার। রংপুরে তারকাদের ছড়াছড়ি না হলেও টুর্নামেন্টের অন্যতম সেরা দল রংপুর।

আক্রমণাত্মক ব্যাটিং লাইন আপ,অলরাউন্ডারে ভরপুর আর স্পিনারের সমারোহে এবারের বিপিএলের শিরোপার দাবিদার রংপুর।

Leave a Reply