ক্যাঙ্গারু – বাঘের লড়াইয়ের চ্যাম্পিয়নস ট্রফি

চ্যাম্পিয়নস ট্রফি -২০১৭, পঞ্চম ম্যাচে আজ মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়া। কেনিংটন ওভালের এই ম্যাচটি দুই দলের জন্যই মহা গুরুত্বপূর্ণ, দুই দলই জানে আজ হারলেই ছিটকে পড়তে হবে টুর্নামেন্ট থেকে। নিজেদের প্রথম ম্যাচে বৃষ্টিবিঘ্ন ক্রিকেটে কিছুটা লাভই হয়েছে ক্রিকেটের আপাদমস্তক পরাশক্তিদের। তবে, বাংলাদেশ প্রথম ম্যাচটা হেরেই শুরু করেছে আর অস্ট্রেলিয়া – নিউজিল্যান্ড ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়াতে ক্ষানিকটা লাভই হয়েছে বাংলাদেশের। তবে, সেটা লাভ থাকবে যদি আজকে কেনিংটন ওভালে কার্ডিফ নামিয়ে আনা যায়, যদি আশরাফুল আর আফতাব হয়ে উঠে তামিম – সাব্বিরের ব্যাট! আজ বিকেল সাড়ে তিনটায় ম্যাচটা শুরুর আগে আসুন দেখি, দুই দলের সর্বশেষ পরিস্থিতি।

অস্ট্রেলিয়া শিবিরে সংশয়ঃ

চ্যাম্পিয়নস ট্রফিটা যেভাবে শুরুর প্রত্যাশা করেছিলো শিরোপা প্রত্যাশী অজিরা ঠিক সেভাবে শুরুটা হয়নি। প্রথম ম্যাচটা হারেনি ঠিক আছে, তবে বৃষ্টির কল্যাণে এক পয়েন্ট পেলেও কেন উইলিয়ামসনরা সেদিন অজিদের বোলিং শক্তির কিছু দুর্বলতা আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়েই ছেড়েছেন। তারপর ধুকতে থাকা ব্যাটিং থেকে স্বস্তি আসে বৃষ্টির পথ ধরে। তবে, রাজকীয় শুরু না হবার যন্ত্রনা আর বোলিং ইউনিটের লাইন লেন্থ না পাওয়ার অস্বস্তি কিন্তু অজিদের থাকছেই।

গত ফেব্রুয়ারীর পর, মিচেল স্টার্ক সেদিন কিউইদের বিপক্ষেই মাঠে নেমেছিলেন প্রথমবারের মতো ওয়ানডে খেলতে আর হ্যাজেলউড এই সময়ে খেলেছেন কেবল একটা প্রস্তুতি ম্যাচ। আর তার ধাক্কাটা ভালোই টের পেয়েছে অজিরা। রানের পাহাড়ে চড়েছিল কিউইরা!

তবে, সেদিনের পর আরেকবার ছন্নছাড়া বোলিং দেখা যাবে, অজিদের থেকে সেটা প্রত্যাশা না করাই ভালো। তামিম-সৌম্যদের পরীক্ষা নিতে আজ পুরোদমে রণ পরিকল্পনা নিয়েই মাঠে নামবেন স্টার্ক-হ্যাজেলউডরা।

উপভোগের মন্ত্র পড়া বাংলাদেশঃ

অধিনায়ক যখন মাশরাফি, তখন মঞ্চটা যত বড়ই হোক না কেন, বাড়ির মাঠে খেলা বিকেলের ক্রিকেটের মতোই উপভোগ্য করে তুলতে অধিনায়কের চেষ্টার কমতি থাকেনা। ভয় ডর হীন, এগ্রেসিভ বাংলাদেশের পেছনের রহস্যই তো ক্রিকেটটাকে নিংড়ে উপভোগ করা।

প্রথম ম্যাচেই স্বাগতিক ইংল্যান্ডের কাছে  হারলেও চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে শুরুটা মন্দ হয়েছে বলা যাবেনা টাইগারদের। প্রাথমিক ইম্প্রেশনটা ভালোই দিয়েছে মাশরাফির দল। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দারুণ ব্যাটিং এর পর বোলিং আর ফিল্ডিং শক্তিতেও দারূণ ক্রিকেট উপহার দিয়েছে দল। তাই কিছুটা স্বস্তির সুবাতাসই বইছে দলের ভিতরে।

আগের দিনের আট ব্যাটসম্যান তত্ত্ব নিয়ে আরেকবার ভাবতে হবে এই কথাতো আগেই জানিয়ে দিয়েছিলেন মাশরাফি। একজন জেনুইন বোলারের ঘাটতিটা কিছুটা অনুভব করেছে, একজন পেশাদার বোলার থাকলে আরেকটু চাপে রেখে হয়তো ইংল্যান্ডকে একটু বিপদে ফেলা যেতো, এই ভাবনা থেকেই আজ ইমরুল কায়েসের জায়গায় চলে আসতে পারেন মেহেদী মিরাজ। সেক্ষেত্রে সাব্বিরকে আবার তিনে দেখা যাবার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছেনা।

তবে, এই টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের বড় অর্থে সাফল্যের সম্ভাবনা অনেকটাই নির্ভর করছে আক্রমনাত্বক ব্যাটিং এর পাশাপাশি ভালো বলে সিঙ্গেল রান নেয়ার চেষ্টাটা একটু বাড়ানোর উপরে, দল নিশ্চয়ই বুঝতে পারছে।

Leave a Reply