ক্যাপ্টেন; দ্য ড্রিমম্যান অন দ্য ফিল্ড

ক্লাইভ লয়েড উপমহাদেশের ইংরেজ শাসনামলের সময়কালে ক্লাইভ নামটা ছিল যমের মত। ক্লাইভ নামটা প্রথম ইতিহাস বইতেই পড়েছিলাম। পরে ক্লাইভ লয়েড নামটা শোনার পর প্রথমেই মনে হয়েছিল, ইনি কি সেই ক্লাইভের কিছু কিনা আবার! উপমহাদেশের ক্রিকেটের দলগুলোর কাছে ক্লাইভ লয়েডকে ও তার দলকে দেখে লর্ড ক্লাইভের কথা মনে পড়লেও তেমন দোষ দেয়া যেত না তখন। ক্লাইভ লয়েডের দলটা যে হিংস্রতা নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ত প্রতিপক্ষের উপর!
বিশ্ব ইতিহাসের সেরা অধিনায়কদের সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত তালিকাতেও নাম আসবে ক্লাইভ লয়েডের। সত্তরের দশকের সেই আক্ষরিক অর্থেই মাঠ থেকে পুরো দুনিয়া কাঁপানো দলটার নেতৃত্ব ছিল ক্লাইভ লয়েডের হাতেই। দেখে মনে হতে পারে দলটা যেমন দুর্দান্ত ছিল তাতে ক্যাপ্টেনের তেমন কিছুই করার নেই। কিন্তু এতগুলো বাঘের দলে নেতা বাঘ হয়ে সবাইকে পরিচালিত করার জন্য কেমন হতে হয় সেটা বুঝে আসবে তখনকার ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলটাকে দেখলেই!
পেস বোলিং এর জন্য বিখ্যাত ম্যালকম মার্শাল জোয়েল গার্নারদের নিয়ে গড়া দলটাতে সঙ্গী ছিল ভিভ রিচার্ডস সিমুর নার্সের মত বিধ্বংসী ব্যাটসম্যানেরা। আর দলটা মাঠে চেয়ে থাকত নেতার দিকে, কি বলেন। লয়েড যা বলতেন সেটা সর্বাত্মক হিংস্র ভাবে বাস্তবায়ন করতেন প্লেয়ারেরা।
ওয়েস্ট ইন্ডিজের কোন একজন গ্রেট প্লেয়ার একবার গল্প শুনিয়েছিলেন যে একবার আগে ব্যাট করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দেড়শ রানের মধ্যে গুটিয়ে যাওয়ার পর বিরতিতে সবাই মিলে সংক্ষিপ্ত টিম মিটিং এ সিদ্ধান্ত নেন যে তারাই ম্যাচটা জিতবেন! এবং ঠিকই চার বা পাঁচ রান বাকি থাকতেই প্রতিপক্ষকে গুটিয়ে দেন!

এই যে ম্যাচ জয়ের সিদ্ধান্ত নেয়া এবং বাস্তবায়ন করে দেখানোর মত একটা দল আসলে গঠন হয় ক্লাইভ লয়েডের মত ক্যাপ্টেনদের হাতেই! ও, বলতে ভুলেই গেছিলাম। ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসেও সর্বকালের সেরা অধিনায়ক হিসেবে লয়েড আছেন রিকি পন্টিং এর সাথে যৌথ ভাবে, দুই বিশ্বকাপ জয়ী ক্যাপ্টেন হিসেবে। ক্রিকেট ইতিহাসের প্রথম দুই বিশ্বকাপ ৭৫ এবং ৭৯ এই দুইবারই বিশ্বকাপ জয়ী ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের নেতৃত্ব ছিল ক্লাইভ লয়েডের কাছেই! ৮৩ তে আবার হেরেও গেছিলেন অবশ্য কপিল দেবের ইন্ডিয়ার কাছে ফাইনালে, সেটাও ওই লয়েডের ক্যাপ্টেন্সিতেই। এই পরিসংখ্যানের সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ দিক হল, ওনার ক্যাপ্টেন্সির সময়টা আসলে টেস্ট ক্রিকেটের সময় হিসেবেই বেশী বিখ্যাত! তাই ওয়ানডে টেস্ট ছাড়িয়ে তিনি ক্রিকেট ইতেহাসেই কিংবদন্তির অধিনায়কের পরিণত হয়েছেন। ক্লাইভ লয়েডের ক্যাপ্টেন্সি আমি দেখিনি। কারণ তখনও জন্মই হয়নি আমার। তারপরও আমার কাছে ক্রিকেটের সর্বকালের সেরা ক্যাপ্টেন ক্লাইভ লয়েডই! এখনও আপনার দলটাকে ভয় লাগে, লয়েড!


ম্যানিয়াক্স ডেস্ক থেকে 
আব্দুল্লাহ মারুফ 
ম্যানিয়াক্স ডেস্ক
ক্রিকেট ভালোবাসি, কেননা বাংলাদেশকে ভালোবাসি।

Leave a Reply