ওডিআই ক্রিকেট ও বাংলাদেশের সাফল্যের অলিগলি

বাংলাদেশ ক্রিকেটের ইতিহাস সময়ের সাথে ক্রমান্বয়ে সমৃদ্ধশালী। এদেশের ক্রিকেট ইতিহাস মাত্র ৩৩ বছরের ইতিহাস। সংখ্যার হিসেবে কম দেখালেও আজ এই ২০১৭ এর বাংলাদেশ হতে পোড়াতে হয়েছে অনেক কাঠখড়। লিকলিক করে বেড়ে উঠেছে এদেশের ক্রিকেট অবকাঠামো। বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বপ্রথম আত্মপ্রকাশ করে আসলে ১৯৭৯ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত আইসিসি ট্রফিতে অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে।

ইংলিশ গ্রীষ্ম : ক্রিকেট শত্রু?

বৃষ্টি। এই শব্দটা শোনামাত্র কবিদের চোখ হয়ত ভরে যায় রোমান্টিকতায়, গল্পকাররা হয়ত লিখে ফেলেন দিব্যি এক প্রেমের উপন্যাস, কিন্তু এই শব্দটা শোনামাত্র এক দল মানুষের ভ্রু কুচকে যায়, তারা শুরু করেন নাক সিটকানো। সেই দলটা বিশ্বজুড়ে ক্রিকেটপ্রেমীর দল। বৃষ্টি মানেই খেলায় বাগড়া, মাঠ ঢেকে খেলোয়াড়দের উঠে যেতে হবে। আবার আছে এক ডার্কওয়ার্থ

কেন হারিয়ে যান রাসেল নাজমুলেরা?

সৈয়দ রাসেলের কথা মনে আছে? ছয় ফুট এক ইঞ্চি লম্বা ছেলেটা। স্লো মিডিয়াম ফাস্ট বল করত। যখন বাংলাদেশের কাছে প্রতিটি জয় ছিল সোনার হরিণ সেই সময় বাংলাদেশের অনেক জয়ের নেপথ্য নায়ক ছিলেন সৈয়দ রাসেল। টেস্টে খুব বেশি ভালো করেননি। ৬ টেস্টে মাত্র ১২ উইকেট। তবে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে তিনি দারুন

রাজা তার হারানো রাজত্বের লক্ষে

আইসিসি আয়োজিত টুর্নামেন্টগুলোর মধ্যে একদিনের ও টি২০ বিশ্বকাপের পরেই অবস্থান আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফির। টেস্ট খেলুরে ১০টি দেশের মধ্যে সেরা আটটি দল রেংকিং অনুসারে ১ থেকে ৮ পর্যন্ত দলগুলো অংশগ্রহণ করে এই টুর্নামেন্টে। টুর্নামেন্ট শুরু হয় ১৯৯৮ সালে। প্রথম দিকে ২বছর পরপর অনুষ্ঠিত হলেও ২০০৯ সালের পর থেকে এটা ৪বছর পরপর

সাফল্যের সূচনা নাকি পুনরাবৃত্তি?

আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল বা আইসিসি কর্তৃক পরিচালিত একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের এক প্রতিযোগিতা বিশেষ। মর্যাদার দিক থেকে আইসিসি চ্যাম্পিয়নস্ ট্রফির অবস্থান বিশ্বকাপ ক্রিকেটের পরেই। এখন পর্যন্ত মোট ৭ বার চ্যাম্পিয়নস ট্রফি অনুষ্ঠিত হয়। সর্বাধিকবার  চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ভারত ও অস্ট্রেলিয়া ২ বার করে। এছাড়াও ওয়েস্ট ইন্ডিজ, নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা,

শিরোপা ধরে রাখতে পারবে ভারত?

জুনে ইংল্যান্ডে বসছে আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফির অষ্টম আসর। এতে কাট অফ সময়ের আগে আইসিসি র‍্যাংকিং এর শীর্ষ আট দল অংশ নেবে। এ টুর্নামেন্টে কোন দল কেমন করবে তা নিয়ে এরই মধ্যে শুরু হয়েছে আলোচনা। আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফির বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারত। ক্রিকেটের যেকোন আসরেই ফেভারিট হিসেবে প্রথম দিকেই থাকে ভারতের নাম।

ওয়ানডেতে নাম্বার তিনে সাব্বির কেন?

হাবিবুল বাশার থেকে শুরু করে আশরাফুল- আফতাব হয়ে রিয়াদ-সাব্বির। এখনো একজন পারফেক্ট নাম্বার থ্রি ব্যাটসম্যান খোঁজে পায়নি বাংলাদেশ। দলে থিতু হতে পারেননি কেউই। এই মূহুর্তে সাব্বির রহমান নামছেন তিনে, বিশ ওভারের ক্রিকেটে তিনি ইম্প্রেসিভ হলেও ওয়ানডেতে সাব্বির কি আসলেই তিনে খেলার উপযুক্ত? একদিনের ক্রিকেটে আকাশচুম্বী সাফল্য পেলেও ব্যাটিংয়ের তিন নম্বর

সোনার ডিম পাড়া হাঁসটাকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে

রূপকথার সোনার ডিম পাড়া হাঁসের গল্প তো নিশ্চয় শুনেছেন। লোভী কৃষক চেয়েছিল খুব তাড়াতাড়ি বড়লোক হয়ে যেতে। এর ফল ভালো হয়নি। বরং কৃষক লোভের কারনে চিরতরে হারিয়েছিল সোঁনার ডিম পাড়া হাঁসটিকে। এটি শুধুই কল্পকাহিনী নাকি সত্য ঘটনা তা আমার জানা নেই। তবে নিছক গল্প বা সত্য ঘটনা যায় হোক না

আমাদের একজন সিলভা আছে

১৯৯৬ সালে শ্রীলংকা দলটা ছিলো অনেকটা ডার্ক হর্সের মত। কেউ ভাবেনি যে তারা বিশ্বকাপ জিততে পারে। কিন্তু সে'বার তারা বিশ্বকাপ জিতেছিলো। সেই দলের ক্যাপ্টেন ছিলেন অর্জুনা রানাতুঙ্গা। ফাইনালে ৪৭ রানের অপরাজিত এক ইনিংস খেলেছিলেন। বিশ্বকাপ জিততে একটা বড় ভুমিকা পালন করেছিলেন আরও একজন তিনি হলেন অরভিন্দ ডি সিলভা। ফাইনালে অপরাজিত

একজন ফিনিক্স পাখির গল্প…

রূপকথার ফিনিক্স পাখি চেনেন? মৃত্যুর সময় হলে তার গায়ে আগুন জ্বলে যেত, পুড়ে ছাই হয়ে যেতেন, আবার সেই ছাই থেকে জন্ম নিতো নতুন ফিনিক্স। আপনি ফিনিক্স পাখি দেখেছেন? আমি দেখেছি? হ্যা, সেই ফিনিক্সটার নাম মাশরাফি বিন মর্তুজা কৌশিক, নড়াইল এক্সপ্রেস, গুরু। ইনজুরির আগুনে যিনি বারবার পুড়ে ছাই হয়ে গেছেন, ফিরে এসেছেন