ম্যাচ প্রিভিউঃ শ্রীলংকা-বাংলাদেশ ১ম টেষ্ট

sri lanka vs Bangladesh

শ্রীলংকা ও বাংলাদেশ টেস্ট সিরিজ
১ম টেষ্ট, টেষ্ট নং# ২২৫২
গল আন্তর্জাতিক ষ্টেডিয়াম, শ্রীলংকা
সকাল- ১০ঃ৩০, ০৭-১১’মার্চ, ২০১৭
আম্পায়ারঃ আলীমদার এবং মারাইস এরাসমুস
টিভি আম্পায়ারঃ সুন্দরম রবি
ম্যাচ রেফারীঃ এন্ডি পাইক্রফট
রিজার্ভ আম্পায়ারঃ রবীন্দ্র উইমালাসিরি

শেষবার যখন বাংলাদেশ গলে এসেছিল সেবার ছিল নিখাদ ব্যাটিং পিচ। সফরকারী দল ৬৩৮ রানের বিশাল টার্গেট দাড় করিয়েছিল শ্রীলংকার সামনে। যেখানে দেশের হয়ে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি হাকান মুশফিকুর রহমান।

চার বছর পর প্রেক্ষাপট অনেকটাই পাল্টেছে, বাংলাদেশের এখন আর পুর্বের মতন অনুকুল পরিবেশের অপেক্ষায় থাকতে হয় না ভালো কিছুর জন্য। অন্যদিকে শ্রীলংকার উইকেটও হয়েছে বিশ্বের অন্যতম কঠিন পিচগুলোর মাঝে একটি। যেখানে সর্বশেষ ২০১৩ সালে সর্বশেষ ৫০০ রানের বৈতরনি পার হতে পেরেছিল।

সাউথ আফ্রিকার মাটিতে শ্রীলংকার হোয়াইট ওয়াশ হবার দরুন তাদেরকে কিছুটা ভঙ্গুর মনে হলেও ব্যাপারটা ঠিক তেমন নয়। দেশের মাটিতে শেষ পাঁচ ম্যাচের প্রত্যেকটিতে তারা জিতেছে, যার মাঝে আছে অস্ট্রেলিয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইট ওয়াশ করার মত সুখস্মৃতি!

সামনের ম্যাচগুলোতে স্বাগতিক দলের রীতি অনুসারে শ্রীলংকাও হয়তো চাইবে শুরুতেই ব্যাটিং করে দ্রুত রান তুলে সফরকারীদের চাপে রাখতে এবং ততক্ষনে পিচ স্পিন টার্ন করা শুরু করলে সেই অবস্থায় রঙ্গনা হেরাথও দলের বাকি সব স্পিনারদেরকে দিয়ে বল করাবে।

কিন্তু যে জায়গায় বাংলাদেশ শ্রীলংকাকে ঝামেলায় ফেলতে পারে তা হলো তাদের বোলিং এটাক। পার্থক্য গড়ে দিতে পারে মুস্তাফিজুর রহমান, সাকিব আল হাসান কিংবা মেহেদি হাসান। সাথে ড্রেসিং রুমে আছেন কোচ হাথুরুসিংহে, যার শ্রীলংকার কন্ডিশন কিংবা উইকেটের চরিত্র সম্পর্কে দারুন অভিজ্ঞতা রয়েছে।

চোখ রাখা যেতে পারে যাদের উপর…

কেউ কেউ বলে সে শ্রীলংকার সবচাইতে হতাশজনক খেলোয়াড়, আবার কারো মতে সে নির্বাচকদের দ্বারা বৈষম্যের শিকার! ঘটনা যাই হোক না কেন উপুল থারাংগা আবার তার ওপেনিং পজিশনে এসেছে, এবার হয়তো নিজের প্রতিভার প্রতি সুবিচার করবে। যদিও শ্রীলংকান টীমে ওপেনিং পজিশন খুবই কঠিন একটা জায়গা তদুপরি সাম্প্রতিক সময়ে ওয়ানডেতে শতরানের একটা ইনিংস রয়েছে যেটা এই ৩২ বছর বয়সী খেলোয়াড়কে আত্মবিশ্বাসের যোগান দিতে পারে। চান্দিমাল, বাংলাদেশকে দেখলে যেন তার ব্যাট জ্বলছে উঠে, এছাড়া রয়েছে অভিজ্ঞ রংনা হেরাথ।

মুশফিকুর রহিম, এই মাঠে যার একটি দ্বিশতক রানের ইনিংস রয়েছে এবং অতি সম্প্রতিই করা একটা শতরানের ইনিংস, এবং সদ্যই কিপিং গ্লাভস খুলে রাখা, যার একমাত্র কারন সে যেন ব্যাটিং এ আরো মনোযোগ দিতে পারে। কিপিংএর বাড়তি চাপ থেকে মুক্তি তাকে দলকে নেতৃত্বদানেও সাহায্য করতে পারে। সব কিছু মিলিয়ে মুশফিক এবার দারুন কিছু করে দেখাতেই পারে। বাংলাদেশের তুরুপের তাস হয়ে উঠতে পারে সদ্য ইনজুরি থেকে ফিরে আসা ফাস্ট বোলার কাটার মাস্টার মুস্তাফিজও। যেকোন সময় যেকোন কিছু করার মতো ক্ষমতা রাখে বাংলাদেশী এই বোলার। তাছাড়া বাংলাদেশের সেরা তুরুপের তাস তো রয়েছেই যিনি হলেন বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার সাকিব-আল-হাসান। রয়েছে সদ্য ক্রিকিনফো উদীয়মান ক্রিকেটার ভূষিত মেহেদী হাসান।

দলের খবরাখবর…

কানাঘুষা শোনা যাচ্ছে যে শ্রীলংকা হয়তো ছয় ব্যাটসম্যান নিয়ে নামবে যেখানে আসেলা গুনারত্নে ও ধনঞ্জয় ডি সিলভা বল হাতেও ভালোই কার্যকরী। দিলরুয়ান পেরেরা হয়তো দ্বিতীয় স্পিনার হিসেবে খেলবে। লাহিরু কুমারা হয়তোবা নতুন বলে সুরাংগা লাকমানের সাথে পেস বোলিং এ নেতৃত্ব দিবে। অধিনায়ক হেরাথ জানিয়েছে নিরোশান ডিকওয়ালে এই ম্যাচে উইকেটের পিছনে গ্লাভস হাতে থাকবে যার মানে দাঁড়ায় দীনেশ চান্দিমাল হয়তোবা চার নাম্বারে ব্যাট করতে নামবে।

সম্ভাব্য একাদশঃ

শ্রীলংকাঃ দিমুথ কারুয়ানারত্নে, উপুল থারাংগা, কুশাল মেন্ডিস, দীনেশ চান্দিমাল, আসেলা গুনারত্নে, নিরোশান ডিকওয়ালে(উইকেটরক্ষক), ধনঞ্জয় ডি সিলভা, দিলরুয়ান পেরেরা, রন্নগনা হেরাথ(অধিনায়ক), সুরাংগা লাকমাল, লাহিরু কুমারা।

মুশফিকুর রহিম জানিয়েছে বাংলাদেশ শেষ পর্যন্ত অপেক্ষা করবে ঠিক কতজন ফাস্ট বোলারকে খেলাবে তা জানার জন্য। চমকপ্রদ ভাবে শুভাশিস রায় কামরুল ইসলাম রাব্বির বদলে তৃতীয় স্পিনার হিসেবে খেলতে পারে। তিন স্পিনার নিয়ে খেলতে গেলে বাংলাদেশের অটো চয়েস হিসেবে থাকবে তাইজুল ইসলাম।

সম্ভাব্য একাদশঃ তামিম ইকবাল, সোম্য সরকার, মমিনুল হক, মুশফিকুর রহিম(অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান, মাহমুদুল্লাহ, লিটন দাস(উইকেটরক্ষক), মেহেদি হাসান, তাইজুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান, তাসকিন আহমেদ।

পিচ এবং কন্ডিশন…

কিছুটা অপ্রচলিত হলেও ম্যাচ শুরু হবার দুদিন আগেও পিচে সবুজ ঘাষ দেখা গিয়েছে, সেই সাথে সমুদ্র তীরের বাতাস এবং আবহাওয়া বার্তা অনুয়ায়ী বলা যায় প্রখর সুর্যকিরন থাকবে মাঠে। ধারনা করা হচ্ছে চতুর্থদিনের শেষে হয়তোবা পিচে ধুলো দেখা দিতে পারে।

পরিসংখ্যান…

  • দুই দলের মধ্যকার ১৬টি টেস্ট ম্যাচের মধ্যে শ্রীলংকা জিতেছে ১৪টিতে এবং বাকি দুইটি ড্র হয়েছে।
  • ৩৫৭টি উইকেট নিয়ে বামহাতি স্পিনারদের মাঝে সবচেয়ে উপরে অবস্থান করছে রংগনা হেরাথ।
  • এই প্রথম মেহেদি ও মুস্তাফিজ একই সাথে এক টেস্টে খেলতে নামছে।
  • দীনেশ চান্দিমালের বাংলাদেশের বিপক্ষে গড় ১২৮.৩৩, সাথে আছে ৫ ইনিংসের ৩টিতেই সেঞ্চুরি।
ম্যানিয়াক্স ডেস্ক
ক্রিকেট ভালোবাসি, কেননা বাংলাদেশকে ভালোবাসি।

Leave a Reply