আমিতো বাচ্চা নই যে নিজেকে প্রমাণ করতে হবে: নাসির

বাংলাদেশ ক্রিকেটে মিস্টার ফিনিশার হিসেবে খ্যাত নাসির হোসেন।
কিন্তু গত বছর থেকেই সময়টা দারুণ খারাপ যাচ্ছে তার। ব্যাটে নিয়মিত রান করার পরও জাতীয় দলের প্রথম একাদশে জায়গা পাচ্ছেন না তিনি।
একের পর এক ক্রিকেটারকে তার জায়গায় সুযোগ দেয়া হচ্ছে যেন নাসিরের বিকল্প খুজছেন নির্বাচকরা। কিন্তু বরাবরই ব্যর্থ তারা। তাইতো
ইংল্যান্ড সিরিজের শেষ দুই ওয়ানডে ম্যাচে বাধ্য হয়েই নাসিরকে খেলানো হয়। মাঠে নেমে দুর্দান্ত ব্যাটিং বোলিংয়ে স্পষ্ট জানিয়ে দেন তার জায়গা সাইড লাইনে নয়।

এরপরও নিউজিল্যান্ড সিরিজের জন্য ২২ সদস্যের দলেও নেই তিনি। তাই বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) বাড়তি চাওয়া থাকাই স্বাভাবিক। কিন্তু নিজেকে প্রমাণ করার এ মঞ্চ নিয়ে বললেন উল্টো কথা। কিছুটা অভিমানের সুরেই বললেন, আমি তো আর বাচ্চা নই যে নিজেকে প্রমাণ করতে হবে।


অভিমান করাই তো স্বাভাবিক। বারবার নিজের সেরাটা দেওয়ার পরও উপেক্ষিত নাসির। নিজেকে প্রমাণ করেই জাতীয় দলে জায়গা পেয়েছেন। নতুন করে আর নিজেকে প্রমাণের কি আছে!

তাইতো বুধবার চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দলের হয়ে অনুশীলন শেষে নাসির বলেন,  ‘প্রতিটা ম্যাচই আসলে আমার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তবে নিজেকে প্রমাণ করার কিছু নেই। আমি তো আর বাচ্চা নই যে নিজেকে প্রমাণ করতে হবে! আমার কাজ হচ্ছে রান করা, ম্যাচ জেতানো- এটাই।’

ঢাকা ডায়নামাইটসের হয়ে এবারের বিপিএলের প্রথম দুই ম্যাচে ব্যাটিং করার সুযোগই পাননি নাসির। তাই পরের দুই ম্যাচে ব্যাটিং অর্ডার পরিবর্তন করে নাসিরকে তিন নম্বরে ব্যাটিং করতে পাঠান সাকিব। আর সেখানে ব্যাটিং করেই সফল এ অলরাউন্ডার।

শেষ দুই ম্যাচে করেছেন ৪৩ ও ৩৮। এবং তার দারুণ ব্যাটিংয়ে দলও পেয়েছে টানা জয়। এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘নতুন স্থানে ব্যাটিং অবশ্যই ভালো লাগছে। যেখানে খেলেই রান করেন না কেন, ভালো লাগবেই। এগারো নম্বরে করলেও ভালো লাগে। গত দুই ম্যাচে আমি তিন নম্বরে ব্যাটিং করেছি। রানও পেয়েছি। এটাই আমার জন্য ঠিক আছে।’

Leave a Reply