মোহামেডান ও প্রাইম ব্যাংকের জয়

গত বছর শেষ ম্যাচে করেছিলেন ১৩২ বলে ১৪২ রান। এবার শুরুটা করলেন ১২৫ বলে ১৫৭ রানে। তবে গতবছর আবাহনীতে ছিলেন আর এবার মহামেডানে। নিষেধাজ্ঞার কারনে খেলতে পারেননি আগের ম্যাচ। সেই ধাকটাই যেনো দেখালেন ব্যাট হাতে। বলছিলাম তামিম ইকবালের কথা।

তামিমের ১৫৭ রানের উপর ভর করে ২৪ রানের জয় পায় মোহামেডান। তামিম ছাড়াও শামসুর রহমান ৩৮ ও রাব্বি করে ২২রান। ১৫৭ রানের মাধ্যমে লিস্ট এ ক্রিকেটে ৭০০০ রানের মাইলফলক স্পর্শ করলো তামিম ইকবাল।

কলাবাগান ক্রিড়া চক্রের বিপক্ষে প্রথমে ব্যাট করে ৩০৭ রান করে মোহামেডান। জবাবে তাইজুল শুভাষিশ ও রাব্বির বোলিংয়ে ৫০ ওভারে ২৮৩ রান নিতে পারে কলাবাগান। কলাবাগানের হয়ে নিষেধাজ্ঞা থেকে ফেরা আশরাফুল করে ৪৬ রান তাছাড়া মাসাকাজ্জা ৬৮ ও তুষার ইমরান নেয় ৬৪ রান। মোহামেডান এর হয়ে তাইজুল ১০ ওভারে উইকেট না পেলেও মাত্র ২৪ রান খরচ করেছেন। অপর দিকে শুভাষিশ ১টি ও রাব্বি নেয় ৩টি উইকেট।

দিনের অন্য ম্যাচে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব ৫৯ রানে হারায় খেলা ঘর সমাজ কল্যাণ সমিতিকে। কাকতালীয় ভাবে এই ম্যাচেও প্রাইম ব্যাংক ৩০৭ রান সংগ্রহ করে ।
প্রাইম ব্যাংকের হয়ে সেঞ্চুরি করেন আল আমিন। তাছাড়াও সৌম্য সরকারেন ৩৯ সাব্বির রহমানের ৩৬ জাকির হোসেন ৫০ রান ও ভারতের উন্মুক্ত চান্দ করেন ৩২ রান। খেলা ঘরের হয়ে ডলার মাহমুদ ও শামসুল আলম নেন ২টি করে উইকেট।
জবাবে সালাউদ্দিন পপ্পুর ৪১ অমিত মজুমদারের ৩৯ ও নাজমুল সাদাতের ৫০ রানের উপর ভর করে ৪৭ ওভারে ২৪৮ রান নেয় খেলাঘর। প্রাইম ব্যাংকের হয়ে রুবেন হোসেন ২ টি ও নাহিদুল ইসলাম নেয় ২টি উইকেট।

দুর্বল প্রতিপক্ষ হওয়ায় এই দুই দলের জয় প্রাপ্যই ছিলো। তবুও সমান তালে লড়ে গেছে দল দুটি।

আজকের ম্যাচের সেরা প্রাপ্তি তামিম ইকবালের সেঞ্চুরি। তার আজকের এই রান লিস্ট এ ক্রিকেটে কোনো ক্রিকেটারের ব্যাক্তিগত সর্বোচ্চ রান।
আবার আজ ২ টি ম্যাচেই দুটি দল ৩০০+ রান করেছে।
আমাদের ঘরোয়া লীগের মত যদি আমাদের বিপিএল টাও যদি এমন ব্যাটিং পিচে হতো তবে হয়ত সেটা আরও জনপ্রিয় তা পেতো। আসা করি বিসিবি সে দিকেও নজর দিবে।

Leave a Reply