আমাদের একজন সিলভা আছে

১৯৯৬ সালে শ্রীলংকা দলটা ছিলো অনেকটা ডার্ক হর্সের মত। কেউ ভাবেনি যে তারা বিশ্বকাপ জিততে পারে। কিন্তু সে’বার তারা বিশ্বকাপ জিতেছিলো। সেই দলের ক্যাপ্টেন ছিলেন অর্জুনা রানাতুঙ্গা। ফাইনালে ৪৭ রানের অপরাজিত এক ইনিংস খেলেছিলেন। বিশ্বকাপ জিততে একটা বড় ভুমিকা পালন করেছিলেন আরও একজন তিনি হলেন অরভিন্দ ডি সিলভা। ফাইনালে অপরাজিত ১০৭ রান। সাথে ৯ ওভার বল করে ৪২ রানে ৩ উইকেট । তিনি জয়ের শ্রীলংকার ভিত গড়ে দিয়েছিলেন প্রথমে বল হাতে ও পরে ব্যাট হাতে।

এসব বলার কারন আমাদের শ্রীলংকা সফর শেষে তাদের ১৯৯৬ এর বিশ্বকাপ জয়ী অধীনায়ক বলেছেন আমাদের বিশ্বকাপ জিততে একজন সিলভা লাগবে। যে বোলিং ও ব্যাটিং ২ ডিপার্টমেন্টেই দলকে নেতৃত্ব দিবে সামনে থেকে। এমন একজন সিলভা হলেই নাকি আমরা বিশ্বকাপ জিততে পারব।

আচ্ছা বলুন তো আমাদের কি এমন কোনো সিলভা নেই?

যদি বলি আছে তবে কি ভুল বলা হবে? মোটেই না। আমাদের একজন সিলভা আছে সে যেদিন ভালো খেলবে দল সেদিন জিতবে। সে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেয় দলকে। বোলিং হোক আর ব্যাটিং সব জায়গায়য় তার বিচরণ করে স্বমহিমায়। তিনি কে তিনি সাকিব আল হাসান। হ্যা তিনি চাইলে দলকে বিশ্বকাপ জেতাতে পারেন।

উদাহরণ দিতে হবে? আচ্ছা, তবে ২০০৯ থেকেই ধরুন তখনও সে কিশোরই পরিপক্ব হয়নি ওয়েস্টইন্ডিজ পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে গেলো দল প্রথম ম্যাচেই ক্যাপ্টেন ইনজুরিতে পরে বাইরে চলে গেলো দায়িত্ব পরলো তার ঘাড়ে। ২য় ম্যচে ১১৪ রান ও ৮ উইকেট নিয়ে দলকে জেতালেন। অনেক পুরানো কথা? আচ্ছা ত্রিদেশীয় সিরিজের কথা মনে আছে? আচ্ছে সেটা আমরা জিততে পারিনি? সেটাও বাদ দিলাম। ২০১৫ পাকিস্তানকে হারানো প্রথম টি২০ ম্যাচের কথা? সেটাও না হয় থাক। তাহলে সদ্য সমাপ্ত হওয়া শ্রীলংকা সফরের কথাই বলি। ২য় টেস্টটার কথা মনে আছে তারপর প্রথম ওডিআই, ২য় টি২০। সব জায়গায় সাকিব ভালো পারফর্ম করেছে। আর দলও জিতছে। ক্যাপ্টেন তো পরে বলেই দিলোও যেদিন পারফর্ম করে আমরা সে দিন সহজেই জিতে যাই।

এখানেই অরবিন্দ ডি সিল্ভা আর সাকিব আল হাসানের দারুণ মিল, এদের পারফর্মের দিনে অন্য সব তুচ্ছ হয়ে যায়। অন্যদিকে দেখলে সাকিবকে সিল্ভা থেকে কিছুটা এগিয়ে রাখতেই হয় সাকিব ব্যাট বলে যেভাবে সমান পারদর্শী সিল্ভা ততটা ছিলো না।

দলে মোট ১১জন খেলে। এর কেউ কেউ কোনো দিন ব্যর্থ হবে, কোনো দিন সফল। কিন্তু দলের সাফল্য নির্ভর করে সবার মিলিত পারফরমেন্স এর উপর। একজন সাকিব বা সিলভা টানা ম্যাচ জেতাতে পারবেনা। কিন্তু তারা সব সময়ই বড় ম্যাচের পারফর্মার। তাই দলের ১১জনের মধ্যে একজন সিলভা লাগে।

আর আমাদের সেই সিলভা হলো সাকিব। যে সব সময়ই বাংলাদেশ কে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেয়। যে বিগ ম্যাচের পারফর্মার। যে দলে থাকলে সকলের একটা ভরসা থাকে। এখন সে আরও পরিনত। কিছুদিন আগে সে নিজেই বললো ২০১৯ বিশ্বকাপ আমরা জিততে পারি। আর আমরাও সেই আশায় আছি একটা বিশ্বকাপ জয়ের।

Leave a Reply