কে হচ্ছেন পরবর্তী টি২০ অধিনায়ক?

২০০৯ সালে যখন প্রথম আলোয় খবরটা চোখে পড়েছিল বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা অনেক খুশি হয়েছিলাম। একটা আশঙ্কাও ছিল। মাশরাফিকে অধিনায়ক করা মানে তো অধিনায়কের ইনজুরির সঙ্গে বসবাসের প্রস্তুতি! অধিনায়ক আহত হয়ে ড্রেসিংরুমে বসে থাকবে আর কাগজে-কলমে যে সহ-অধিনায়ক, তার নেতৃত্বেই খেলবে দল—এই কি তবে বাংলাদেশ দলের পরিণতি? ভাগ্যের কি পরিহাস! মাশরাফিকে যে দুই সিরিজের জন্য অধিনায়ক করা হলো তার প্রথমটাতেই সত্যি হলো শঙ্কা। হাঁটুর ইনজুরি নিয়ে দেশে ফিরে এলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক, সহ-অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে খেলেছে দল।

এরপর ২০১০ সালের শেষদিকে নিউজিল্যান্ড যখন বাংলাদেশ সফরে আসলো, সেবারও অধিনায়ক মাশরাফি প্রথম ম্যাচেই ইনজুরিতে পড়ে মাঠ থেকে বেরিয়ে যান। নেতৃত্বের দায়িত্ব পালন করেন তখন সাকিব আল হাসান।

অনেকটা কাকতালীয়ই বলা চলে। এবার মাশরাফির অবসরের পরও সম্ভাব্য অধিনায়ক হিসেবে সবার আগে সাকিবের নামটিই আসছে। সাকিবই যে অধিনায়ক হচ্ছেন তার আনুষ্ঠানিক ঘোষনা এখনো আসেনি। তাই এখনো নিশ্চিত করে কিছুই বলা যাচ্ছে না। অধিনায়কত্বের দায়িত্ব সিনিয়র কেউ পাচ্ছেন এটা শতভাগ নিশ্চিত। মুশফিকুর রহিম টেস্ট দলের অধিনায়ক। তার কাঁধে টি২০’র নেতৃত্ব তুলে দেয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। বিপিএলে চিটাগাং ভাইকিংসের অধিনায়ক হিসেবে ব্যর্থ তামিম ইকবাল। সুতরাং, জাতীয় দলে টি২০ নেতৃত্ব তামিমের ঘাড়ে দেয়া হবে না এটা মোটামুটি বলা যায়।

বাকি থাকেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ আর সাকিব আল হাসান। বিপিএলের গত আসরে বরিশাল বুলসকে নেতৃত্ব দিয়ে ফাইনালে নিয়ে গিয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। যদিও মাশরাফির কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের কাছে হেরে শিরোপা জিততে পারেননি তিনি। তবে তার অসাধারণ নেতৃত্ব সবারই প্রশংসা কুড়িয়েছিল।

সর্বশেষ বিপিএলেও খুলনা টাইটান্সকেও অসাধারণ নেতৃত্ব দিয়েছিলেন রিয়াদ। তবে সাম্প্রতিক সময়ে তার পারফরমেন্স ভালো হচ্ছে না। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৩ ম্যাচের টি২০ সিরিজের পরই ভেতরে ভেতরে আলোচনা তৈরি হয়েছিল। টি২০’তে নতুন রক্তের সঞ্চার করা প্রয়োজন- এই তত্ত্ব নিয়ে বিসিবির ভেতরে এবং বাইরে আলোচনা ছিল বেশ সরব।

অধিনায়ক হিসেবে সাকিবকেই প্রথম পছন্দের তালিকায় রাখছেন প্রায় সবাই। কোনো সন্দেহ নেই মাঠের বাইরে বিতর্কিত হলেও সাকিব মাঠে নিজেকে একজন ভালো অধিনায়ক হিসেবে প্রমাণ করেছে। তার ফর্মও ভালো যাচ্ছে। সাকিব এই মুহূর্তে দলের একজন নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান। স্পিন নেতৃত্বও এখন বলতে গেলে তাঁর হাতেই। এর সঙ্গে অধিনায়কত্ব যোগ হলে চাপ বেশি হয়ে যায় কিনা সেটাই ভাবাচ্ছে। তবে আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে বাংলাদেশের পরবর্তী টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পেতে যাচ্ছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

Leave a Reply