ওয়ানডেতে নাম্বার তিনে সাব্বির কেন?

হাবিবুল বাশার থেকে শুরু করে আশরাফুল- আফতাব হয়ে রিয়াদ-সাব্বির। এখনো একজন পারফেক্ট নাম্বার থ্রি ব্যাটসম্যান খোঁজে পায়নি বাংলাদেশ। দলে থিতু হতে পারেননি কেউই। এই মূহুর্তে সাব্বির রহমান নামছেন তিনে, বিশ ওভারের ক্রিকেটে তিনি ইম্প্রেসিভ হলেও ওয়ানডেতে সাব্বির কি আসলেই তিনে খেলার উপযুক্ত? একদিনের ক্রিকেটে আকাশচুম্বী সাফল্য পেলেও ব্যাটিংয়ের তিন নম্বর পজিশনে কোনো ব্যাটসম্যানকে সেট করতে পারেনি বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট। বিভিন্ন সময়ে বেশ কয়েকজনকে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু তাতে কোনো ফলই আসেনি। এর দায় ভার টিম ম্যানেজমেন্ট এড়াতে না পারলেও এক্ষেত্রে ভাগ্যও সাথে ছিল না।

প্রতিটি দলের সেরা ব্যাটসম্যান সুপার পজিশন ‘নাম্বার তিনে’ খেলে থাকে। বিরাট কোহলি, স্টিভ স্মিথ, জো রুট, কেন উইলিয়ামসন ওয়ানডে তে ওয়ান ডাউন পজিশনে ব্যাট করেন। এই পজিশনে ব্যাট করতে হলে ব্যাটসম্যানদের বেসিক স্ট্রং হতে হয়। প্রথম কথা হল অবশ্যই স্ট্রাইক রোটেট করতে হবে। মাইন্ডসেট থাকতে হবে বড় ইনিংস খেলার। সেই জন্য একপ্রান্ত আগলে রাখতে হবে। রানের চাকাও সচল রাখতে হবে। এই তিনটি গুনের একটিরও অভাব থাকলে নাম্বার তিনে সফল হওয়া বেশ কঠিন। সাব্বিরের মাঝে প্রথম দুইটা গুনই অনুপস্থিত। সাব্বিরের ইনিংসগুলো কিছুতেই বড় হচ্ছে না। এখনো সেঞ্চুরির দেখা পাননি। সিংগেল নিতেও যেন তার বড্ড অনীহা। তার মাঝারি মানের ইনিংসগুলো তার ক্যারিয়ার গ্রাফের উন্নতি ঘটালেও দলের প্রাপ্তির খাতায় তেমন কোন ভূমিকা রাখতে পারছে না।

অন্যদিকে সাব্বির ন্যাচারাল স্ট্রোক মেকার। স্লগ ওভারগুলোতে রানার চাকা ঘুরাতে পারে সে। ফাঁকা জায়গা খুঁজে সিঙ্গেল বের করার চেয়ে উড়িয়ে সীমাছাড়া করতেই তিনি বেশী পছন্দ করেন। বাংলাদেশ ইনিংসের শেষ দশ ওভার কাজে লাগাতে পারছে না। তাই সাব্বিরকে সাত নাম্বারে খেলানো হবে দলের জন্য কার্যকরী সিদ্ধান্ত।

এখন কথা হচ্ছে তাহলে তিনে কে খেলবে? এই জায়গায় সেরা অপশন হতে পারতেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। কিন্তু অনেক দিন ধরেই বড় ইনিংসের দেখা মেলেনি রিয়াদের ব্যাটে। পঞ্চাশ-ষাট-সত্তর পেরিয়েছেন কয়েকবার, কিন্ত ইনিংস বড় করতে পারেননি। খুব একটা ধারাবাহিকও ছিলেন না। সবমিলিয়ে রিয়াদ পিছিয়ে পড়েছে। তাই এখন তিনে খেলার জন্য এখন সবচেয়ে উপযুক্ত ব্যাটসম্যান হলেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। সৈকত ইতিমধ্যে দেশের ক্রিকেটে এক আলোচিত নাম। ইতিমধ্যেই জাতীয় দলে নিজের অবস্থান পাকা করে ফেলেছেন। তবে সাতে নেমে তিনি নিজের সবটুকু দিতে পারছেন না। ঘরোয়া লিগে মোসাদ্দেকের অনেক বড় ইনিংস খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে। নিখুত টাইমিং,অসাধারণ টেকনিক, চোখে লেগে থাকার মত স্কিল। এককথায় কমপ্লিট প্যাকেজ। মোসাদ্দেকের মাঝে নাম্বার তিনে সফল হওয়ার তিনটি গুনই রয়েছে। তাই এখনই দলের স্বার্থ চিন্তা করে আবেগ বিসর্জন দিয়ে বাস্তবতাকে মেনে মোসাদ্দেককে প্রমোশন দিয়ে তিনে ব্যাট করতে দেওয়া উচিত। হাতুড়েসিংহের সবুজ সংকেত না পেলে তা সম্ভব না। তাই হাতুড়েসিংহের বোধদয় হবে এই আশা করা ছাড়া আমাদের আর কিছু করার নেই!

Leave a Reply