নিউজিল্যান্ডের সাথে তামিমের অর্জন।

নিউজিল্যান্ডের সাথে টেস্ট ক্রিকেটে নিজের জাত ঠিকই চিনিয়ে যাচ্ছেন বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল খান। ২০০৮ সালে ৪ জানুয়ারি নিউজিল্যান্ডের ডোনেডিনে শুরু হওয়া প্রথম টেস্ট দিয়ে টেস্ট ক্রিকেটে নিউজিল্যান্ড যাত্রা শুরু হয় তামিমের। প্রথম ম্যাচে প্রথম ইনিংসে ৯টি চারের মাধ্যমে করেছিলেন ৫৩ রান। যেটি ছিল নিউজিল্যান্ডের সাথে প্রথম অর্ধশতক। ঐ

বাংলাদেশ বনাম নিউজিল্যান্ড টেস্টঃ বৃষ্টি বিঘ্নিত ১ম দিন।

সবুজ পিচ প্রচন্ড বাতাস আর তার সাথে বৃষ্টি হবার সম্ভাবনা। এমন পরিবেশে মাঠে গড়িয়েছে নিউজিল্যান্ড ও বাংলাদেশের মধ্যকার ১ম টেস্ট ম্যাচ। গত কাল ম্যাচের আগে সবচেয়ে আলোচনার বিষয় ছিলো টস। ইতিহাস বলে টসে জিতে ফিল্ডিং নেয়া দল একটু বেশি সুবিধা পেয়ে থাকে এখানে। তবে টস ভাগ্যটা বাংলাদেশ এর সাথে না

ভিরাট কোহলির উপরে অবস্থান তামিম ইকবালের

ক্রিকেটের জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল ইএসপিএন ক্রিকইনফো ২০১৬ সালের দশটি সেরা ইনিংসের তালিকা করে। তার মধ্যে বাংলাদেশের তামিম ইকবাল এর একটি ইনিংস সেরা দশের সপ্তম স্থানে স্থান পেয়েছে। উক্ত ইনিংসটি ইংল্যান্ডের সাথে দেশের মাটিতে দ্বিতীয় টেস্টে শত রান করা সেই ইনিংস। পরিস্থিতি অনুযায়ী ব্যক্তিগত ইনিংসগুলোর ক্রম নির্ধারণ করা তামিম ইকবালের

ফিরে দেখা স্বর্ণস্মৃতি; বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট জয়।

১০ ই নভেম্বর ২০০০ থেকে ১০ ই জানুয়ারি ২০০৫। সময়ের হিসাবে দীর্ঘ পাঁচ বছর দুই মাস। আর টেস্টের হিসাবে ৩৪ টি টেস্ট। যার মধ্যে ৩১ টিতে পরাজয় আর আর মাত্র ৩ টি টেস্ট ড্র। ৩ টি ড্র টেস্টের মধ্যে আবার দুইটিই বৃষ্টির সাহায্যে ড্র। একমাত্র ক্যারিবিয়দের সাথে নিজের যোগ্যতায় ড্র।

ওয়ানডে অলরাউন্ডারে নিজের শীর্ষ স্থান ফিরে পেলেন সাকিব

no.1 allrounder

ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটে অনেক দিন অলরাউন্ডারে রাজত্ব করেছিলেন সাকিব আল হাসান। কম খেলা আর কিছু সময় ফর্মহীনতায় ভোগার কারণে এই রাজত্ব হারান বাংলাদেশের প্রাণ সাকিব আল হাসান। অবশেষে ওয়ানডে অলরাউন্ডারের প্রথম স্থান দখল করলেন ঢাকা ডায়নামাইটসকে চ্যাম্পিয়ন করা সাকিব। ওডিআইতে অলরাউন্ডারের রাজত্ব আবারও ফিরে পেলেন বাংলাদেশের অন্যতম সেরা এই ক্রিকেটার। বিশ্ব

টেস্ট ক্রিকেটে তামিম ইকবালের সাথে ইমরুল কায়েসের সেরা জুটি।

এই পর্যন্ত ৯৫ টেস্ট খেলা বাংলাদেশ দলের হাহাকার ছিল ওপেনিং নিয়ে। তামিম ইকবাল আসার পর ভালো একজন ওপেনার খুঁজে পায় টাইগাররা। আশা ও ভরসা দুটিই দিচ্ছিল এই তরুণ। কিন্তু পাওয়া যাচ্ছিল না তার সঙ্গে থিতু হওয়ার মতো জুটি। ইমরুল ছাড়াও তামিম ইকবালের সঙ্গে টেস্টে আরও চার ব্যাটসম্যান জুটি বাঁধার চেষ্টা

টি২০ আর ওয়ানডে সিরিজে কি পেলাম, কি হারালাম!

দেশের বাইরে ক্রিকেটটা আমরা কালেভদ্রে খেলি। এবারই যেমন দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলতে ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরের পর প্রথমবারের মতো। প্রায় আড়াই বছর পর। যেই সিরিজ ছিলো কিছু পাওয়ার, তা হয়ে গেলো সব হারানোর। যেই সিরিজ হতে পারতো আরো সিরিজ পাওয়ার দাবি, তা রূপ নিলো এই শঙ্কায়, আবার ডাকবে তো! গত দুই বছর ধরে

ক্রুশিয়াল ম্যাচ – সর্বকালের সেরা নির্বাচনের গুরুত্বপূর্ণ মানদন্ড – দ্বিতীয় পর্বঃ

  ১. আগের পর্বে একটা সূত্র উল্লেখ করা ছিল। সেটা নিয়ে পরে ব্যাখ্যা করি। গত পর্বে পোষ্ট করার পর একটা প্রশ্ন এসেছিল। ‘ক্রুশ্যাল ম্যাচে স্কোর করা নাকি অর্ডিনারি ম্যাচে রেগুলার প্লেমেকিং’ – কোনটা বেশি মূল্যবান? প্রশ্নের মূল বক্তব্য আমি যতদূর বুঝে থাকি তা হচ্ছে ধারাবাহিকতা বেশী মূল্যবান নাকি অনেক ম্যাচ খারাপ করে শুধু

দলের পরাজয়ে হতাশ! তাহলে হয়ে যাক অতীত থেকে একটু সুখের স্মৃতি রোমন্থন!

শুনেছি দুঃসময়ে মানুষ নাকি সু’সময়ের স্মৃতি রোমন্থন করতে ভালোবাসে। বলতে পারেন এ লেখাটা অনেকটা সেরকমই একটা কিছু...!!! জয় উদযাপনে উৎসুক-সাফল্য পিপাসু-ক্রিকেট পাগল যে বিশেষণই ব্যবহার করেন না কেন, নানা মত-ধর্ম-বর্ণ-জাত’এর বাঙ্গালী জাতি শুধু মাত্র একটা জায়গায় এসেই একমত হয়, একাত্মতা ঘোষণা করে। আর সেটা হলো ক্রিকেট নামক খেলায় বাংলাদেশের টাইগারদের জয়ের

অধিনায়ক ধোনীকে কতোটা অনুভব করেন?

লোধা কমিশনের ঘটনা নিয়ে ভারতীয় ক্রিকেট টালমাটাল। ক্রিকেট মাঠের খেলার চেয়েও বেশি যেন মাঠের বাইরের খেলা, আর কয়েকদিন গেলে এই কথাও বলে দেয়া যেত। এত বড় ইংল্যান্ড সিরিজ দুই দিন পর, এটা নিয়ে কথা তেমন একটা হচ্ছে না। মাঠের বাইরের এই ঘটনা থেকে মুখ ফিরিয়ে আনার জন্য ক্রিকেটারদের কিছু না